তাসনুভাঃ দেশের প্রথম ট্রান্সজেন্ডার সংবাদ পাঠক।

কামাল, বর্তমানে তাসনুভা নামেই পরিচিত এবং আলোচিত। দেশে প্রথমবারের মতো একজন ট্রান্সজেন্ডার সংবাদ পাঠক হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হলো তাকে। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে বৈশাখী টেলিভিশন তাসনুভা আনান শিশির নামে এক ট্রান্সজেন্ডারকে সংবাদ পাঠক হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে।

বৈশাখী টিভি কর্তৃপক্ষ সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছে, বাংলাদেশের স্বাধীনতার মূলমন্ত্র ছিল দেশের মানুষের মুক্তি, সবার জন্য বাসযোগ্য, বৈষম্যহীন একটি সমাজ গড়ে তোলা। স্বাধীনতার ৫০ বছরে গর্ব করার মতো অনেক অর্জন থাকলেও বৈষম্যহীন ও সবার জন্য নিরাপদ জীবন নিশ্চিত করা সম্ভব হয়নি। এই ব্যর্থতার কারণে সবচে বড় অবহেলিত জনগোষ্ঠীগুলোর মধ্যে ট্রান্সজেন্ডাররা অন্যতম, যাদেরকে চিরাচরিতভাবে হিজড়া বললে আমাদের সমাজে সকলেই চিনেন।

জন্মগতভাবে এই শারীরিক সীমাবদ্ধতা নিয়ে যারা আমাদের সমাজে ভূমিষ্ঠ হন তাদের পারিবারিক, সামাজিক এমনকি রাষ্ট্রীয়ভাবে বঞ্চনা ও অবহেলার স্বীকার হবার অনাকাঙ্ক্ষিত বাস্তবতাটি আমাদের চিরচেনা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার এই অবহেলিত নাগরিকদের মর্যাদা ও অধিকার প্রতিষ্ঠায় নানা উদ্যোগ নিয়েছেন। ভোটার তালিকায় তারা এখন নারী বা পুরুষ হিসেবে নয় সরাসরি ট্রান্সজেন্ডার পরিচয়েও নিজেদের নাম নিবন্ধন করার অধিকার পেয়েছেন। বিপুল সংখ্যক ট্রান্সজেন্ডারকে সরকার ভাতাও দিচ্ছে। তবে আমরা মনে করি ট্রান্সজেন্ডারদের ধারাবাহিক ও স্থায়ী উন্নয়নের ধারা নিশ্চিত করতে সবার মানসিকতার পরিবর্তন অত্যন্ত জরুরি।

বেসরকারি এই টেলিভিশন চ্যানেল জনসংযোগ কর্মকর্তা দুলাল খান গণমাধ্যমকে বলেন, বৈশাখী টেলিভিশন স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর এই বছর, স্বাধীনতার মাস মার্চে নারী দিবস উদযাপনের প্রাক্কালে আমাদের চ্যানেলের সংবাদে এবং নাটকে দুইজন ট্রান্সজেন্ডারকে যুক্ত করেছি। দেশের মানুষ এই প্রথম কোনও পেশাদার সংবাদ বুলেটিনে খবর পাঠ করতে দেখবেন একজন ট্রান্সজেন্ডারকে, যা স্বাধীনতার ৫০ বছরে দেশে আগে কখনো ঘটেনি। তার নাম তাসনুভা আনান শিশির। আন্তর্জাতিক নারী দিবসে শিশির বৈশাখী টেলিভিশনে তার প্রথম সংবাদ বুলেটিন উপস্থাপন করবেন। এরমধ্য দিয়ে দেশে এক নজিরবিহীন দৃষ্টান্ত স্থাপনে বৈশাখী টেলিভিশনের ঐতিহাসিক উদ্যোগের সহযাত্রী হবেন তিনি। 

তিনি বলেন, একইভাবে আমরা আমাদের বিনোদন বিভাগের নিয়মিত নাটকের মূল চরিত্রগুলোর একটিতে যুক্ত করেছি আরেকজন ট্রান্সজেন্ডারকে। যার নাম নুসরাত মৌ। যাকে পর্দায় প্রথম দেখা যাবে একইদিন আন্তর্জাতিক নারী দিবসে, ধারাবাহিক নাটক ‘চাপাবাজ’-এর একটি পর্বে। যা প্রচারিত হবে ৮ই মার্চ রাত ৯টা ২০ মিনিটে।

আগামী ৮ মার্চ থেকে তাসনুভা আনান নিয়মিত সংবাদ পাঠ করবেন বলেও জানালেন বৈশাখী টেলিভিশনের এই জনসংযোগ কর্মকর্তা।

কামাল নামের ছেলেটিই এখন তাসনুভা

কামাল হোসেন নামের ছেলেটার ডাকনাম ছিল ‘শিশির’। শারীরিক ও মানসিক পরিবর্তনের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিজেকে তাসনুভা আনানে রূপান্তরিত করেছেন তিনি। হরমোন থেরাপি, মানসিক থেরাপিসহ বিভিন্ন ধাপ পার হয়ে ভারতের কলকাতায় গিয়ে অস্ত্রোপচারও করিয়েছেন। পরিবার, সমাজ সহজে মানবে না, এসব মেনে নিয়েই জীবনটা চালিয়ে নিয়েছেন। পড়াশোনার পাশাপাশি বিভিন্ন কাজ করে জীবনসংগ্রামে টিকে আছেন তাসনুভা। এইচএসসি পাসের পর থেকে তাসনুভার আসল লড়াই শুরু। পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ থাকলেও নিয়মিত অর্থের জোগানের নিশ্চয়তা ছিল না।

তাসনুভার বাড়ি বাগেরহাটে। ২০১৪ সাল থেকে তিনি ঢাকায়। সমাজকর্ম বিষয়ে স্নাতকোত্তর করেছেন। ২০০৬ সাল থেকে থিয়েটারের সঙ্গে যুক্ত। বর্তমানে বটতলা থিয়েটার দলের সদস্য। ছোটবেলা থেকেই নাচতেন তাসনুভা। জাতীয় মানবাধিকার কমিশনেও কাজ করেছেন।

তাসনুভা আনান (শিশির)
তাসনুভা আনান (শিশির)

তাসনুভা বললেন, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে জনস্বাস্থ্যে আন্তর্জাতিক মাস্টার্সের বিজ্ঞপ্তি দেখে তিনি আবেদন করেন। ভর্তির আবেদন ফরমে জেন্ডারের ঘরে ছিল নারী বা পুরুষ। কিন্তু তিনি আলাদা ঘর তৈরি করে নেন। সেখানে ‘ট্রান্সজেন্ডার’ লিখে টিক চিহ্ন দেন। পরে নারী বা পুরুষ ছাড়া অন্য কোনো ঘর না রাখায় দুঃখ প্রকাশ করেছে কর্তৃপক্ষ। তাসনুভার মতে, এটাও একটা ইতিবাচক দিক; পরিবর্তনের নতুন মাত্রা।

সূত্রঃ সময় নিউজ এবং প্রথম আলো।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।