অসহায়ত্ব না মায়া? সুপ্রিয়া বিশ্বাস

পাবলিক বাসে বসে বন্যা একাকী ফেসবুকে আঙুল দিয়ে উল্টাছিল। ফেসবুক দেখা অনেকটা নিশ্চুপ সময় কাটানো ছাড়া আর কিছুই না। কারো সাথে অহেতুক কথা বলতে ইচ্ছে না করলে চুপচাপ ফেসবুকে ডুবে থেকে সময় পার করা আর কি!এটা তার নিত্য দিনের জার্নির সঙ্গী।একটা সীট পেলেই হয়।

বকুল সই।। শাহনাজ শারমিন

শিশিরের দূর্বা ভেজা মেঠোপথের রাস্তা।বাবার হাত ধরে লাফাতে লাফাতে বেলা স্কুলে যাচ্ছে । ওর বয়স চার বছর, আজ ওর প্রথম স্কুল যাত্রা। কুঁকড়ানো কালো চুলে ঝুটি বাঁধা । সাদা একটা ফ্রক গায়ে দেখতে মনে হচ্ছে যেন সাদা পরী । এদিক ওদিক তাকাচ্ছে আর হাসিতে গড়িয়ে পরছে। বাবা পরম যত্নে মেয়েকে আগলে ধরে নিয়ে যাচ্ছে ।

জীবন থেকে নেয়া।। সাবেকুন নাহার মুক্তি

জয়িতা , নিরুপমা , মাধবী, নীলিমার আড্ডা চলছে জম্পেশ। বাইরে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি। জানালার কাচ দিয়ে দূরের মাঠে ছোট ছোট ছেলেমেয়েগুলো কাদা মাখামাখি দেখতে সবার চোখ আটকে আছে।

স্বপ্ন-বিলাস।। মধুবন্তী আইচ

কাল তোমাকে দেখলাম মজে আসা জ্যোৎস্নালোকে,
আপাত শান্ত সাগরের পার ধরে হেঁটে চলেছো — ধীরে।
তিরতিরে ছোটো ছোটো ঢেউ এসে স্পর্শ করছে শুভ্র পায়ের পাতা,
প্রতিটি স্পর্শে কয়েক মুহূর্তের জন্য থমকে দাঁড়িয়ে অনুভব করছো

বাঁকা চাঁদ এলো ঈদের খুশি নিয়ে।। মাহমুদা রিনি

ঈদের আনন্দ শুরু হয় চাঁদ দেখার মধ্য দিয়ে, একমাস রোযা পালনের পর নতুন চাঁদ দেখার মধ্য দিয়ে ঈদের সূচনা হয় এবং জনজীবন মেতে ওঠে খুশির জোয়ারে। সামর্থ্য অনুযায়ী ঘরে ঘরে তৈরি হয় নতুন সব সুস্বাদু খাবারের আয়োজন। যারা জীবিকার প্রয়োজনে বাইরে থাকে তাদের ঘরে ফেরার আনন্দ অপরিসীম।

নীল ভালোবাসা।। নাজমুন নাহার রিনু

নুড়ি নতুন দুটি ঘর তৈরী করেছে। একটু জমি কিনেছে। ভাড়া ঘর ছেড়ে নতুন ঘরে উঠবে। স্বামী তার এসব বিষয়ে মাথা ঘামায় না। স্বামী নিজের চাকরি বন্ধু পরিজন নিয়ে ব্যস্ত থাকে।

রম্যরচনা-আঁখ মারে।। জাহিদুল যাদু

মেয়েটি সুন্দর, নজর কাড়া সুন্দরী কোন সন্দেহ নেই। পাড়ার ছেলে ছোকড়ারা তার পিছে বনবন করে ঘুরতে থাকে। মেয়েটির কোমর পর্যন্ত ঘনকালো চুল আকর্ষণীয় শারীরিক গঠন। মেয়েটি স্যালো মেশিনের মতো খটখট করে হাসে…..
সোনিয়া, এই বছর এইচ এসসি পাশ করেছে। ঢাকায় পড়বে বলে কোচিং করছে।