শুভজন্মদিন নীললোহিত

বাংলা সাহিত্যের প্রথিতযশা ক‌বি ও কথাসাহিত্যিক সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের জন্মদিন আজ। কেউ কথা না রাখুক তোমার গুণমুগ্ধ পাঠক তোমা‌কে স্মরণ রে‌খে‌ছি হে ক‌বি। আমরা অনুজ তোমা‌কে স্মরণ ক‌রি প্রতি‌নিয়ত। স্বর্গ থে‌কে তোমার আশীর্বা‌দ কামনা ক‌রি আমরা তোমার জন্মস্থা‌নের ক‌বি, লেখক ও পাঠকরা। তোমার জন্ম‌দি‌নে তোমার জ‌ন্যে শ্রদ্ধাঞ্জ‌লির পুষ্পস্তবক তোমার স্মৃ‌তির মিনা‌রে রে‌খে দিলাম। শ্রাব‌ণের ধারার ম‌তো এ পুষ্পাঞ্জলি ব‌র্ষিত হ‌বে যুগযুগান্তর।

‘কেউ কথা রাখেনি’ সখেদে লিখেছিলেন সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়। এই কবিতায় পেয়েছিলেন তুমুল জনপ্রিয়তা। কেউ কথা রাখুক আর না রাখুক আধুনিক বাংলা সাহিত্যের অন্যতম জনপ্রিয় লেখক সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়কে ঠিক মনে রেখেছে তাঁর পাঠক। ১৯৩৪ সালের ৭ সেপ্টেম্বর পৃথিবীর আলো দেখেছিলেন সুনীল। আজ তাঁর জন্মদিন। তিনি একাধারে কবি, ঔপন্যাসিক, ছোটগল্পকার, সম্পাদক, সাংবাদিক ও কলামিস্ট।

সুনীল কবিতাবিষয়ক পত্রিকা ‘কৃত্তিবাস’ সম্পাদনা শুরু করেন ১৯৫৩ সালে। প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘একা এবং কয়েকজন’ ১৯৫৮ সালে আর প্রথম উপন্যাস ‘আত্মপ্রকাশ’ ১৯৬৬ সালে প্রকাশিত হয়। সুনীলের অমর কীর্তির মধ্যে রয়েছে ‘অর্ধেক জীবন’, ‘অরণ্যের দিনরাত্রি’, ‘প্রথম আলো’, ‘সেই সময়’, ‘পূর্ব পশ্চিম’, ‘মনের মানুষ’ প্রভৃতি। লিখেছেন ‘কাকাবাবু’ নামে জনপ্রিয় গোয়েন্দা সিরিজ।

সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের জন্ম বাংলাদেশের মাদারীপুরে। মাত্র চার বছর বয়সে পরিবারের সঙ্গে চলে যান কলকাতায়। সেখানেই শিক্ষাজীবন, কর্মজীবন ও জীবনাবসান। জীবনানন্দ-পরবর্তী সময়ের আধুনিক বাংলা কবিতার অন্যতম প্রধান কবি হিসেবে তিনি স্বীকৃত। লেখকজীবনে নীললোহিত, সনাতন পাঠক ও নীল উপাধ্যায় ইত্যাদি ছদ্মনাম ব্যবহার করতেন। গতানুগতিকতার বাইরে লেখালেখির কারণে সাহিত্যে স্থায়ী আসন লাভ করেছেন।

আজ_আগামী/নীজ

কবি নীলকন্ঠ জয়

সকল পোস্ট : নীলকন্ঠ জয়

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।